সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৬:২১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ধানমন্ডির বসিলায় ওয়েস্ট হাউজিংয়ে বিনা নোটিশে ১৭ টি পরিবারকে উচ্ছেদ জেল থেকে বেরিয়ে ফের শিশু পর্নোগ্রাফি চক্রে, শিশুসাহিত্যিক টিপু সঙ্গীসহ গ্রেফতার ১ম বিয়ে ১০০, ২য় ৫ হাজার, ৩য় ২০ হাজার, ৪র্থ বিয়ে করলে দিতে হবে ৫০ হাজার টাকা কর সিন্ডিকেট ও মজুতদারির বিরুদ্ধে র‌্যাবের অভিযান হজ নিবন্ধনের সময় বাড়ল ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তুরাগতীরে বৃহত্তম জুমার জামাত অনুষ্ঠিত ঢাকা জেলা প্রেস ক্লাব নির্বাচন শামীম সভাপতি ও ফারুক সাধারণ সম্পাদক পুলিশ হেফাজতে বডি বিল্ডার ফারুকের মৃত্যুর অভিযোগ আদালতে মামলা দায়ের, তদন্তে ডিবি টিআইয়ের দুর্নীতির ধারণাসূচকের প্রতিবেদন অস্পষ্ট: দুদক আড়াই বছরেও কূলকিনারা হয়নি ডা. সাবিরা হত্যাকান্ডের রহস্যের
নোটিশ :
Wellcome to our website...

ভরা মৌসুমেও আলুর চড়া দাম, বিরক্ত ক্রেতা বিক্রেতা

রিপোর্টার / ৩৭ বার
আপডেট : বুধবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২৩

বাজারে ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে আলু। ভরা মৌসুমেও আলুর এই চড়া দামে বিরক্ত ক্রেতা-বিক্রেতা উভয়েই। আলুসহ অন্যান্য সবজির এই চড়া দামের কারণে কাঁচা বাজারে প্রতিদিনই ক্রেতা-বিক্রেতার মধ্যে বসচা হচ্ছে।

মৌসুমের সময় জীবনে কখনো এত দামে আলু বিক্রি করিনি। ভালো লাগে না। খালি খালি কাস্টমারের সঙ্গে তর্ক হয়। কী করবো বলেন? বেশি দামে কিনে কমে বিক্রি করবো কীভাবে?’ কথাগুলো বলছিলেন শান্তিনগর বাজারের জহির মিয়া। তিনি সেখানে বিশ বছরের বেশি সময় সবজি বিক্রি করছেন। তিনিও আলুর বাড়তি দামে বিব্রত, বিরক্ত। আগে কখনো ভরা মৌসুমে এত দামে আলু বিক্রির রেকর্ড তার নেই।

তিনি বলেন, আলু যখন নতুন আসে, তখনকার কথা ভিন্ন। এখন তো ভরা সিজন। এত দাম কেন, আমার নিজেরই মাথায় খেলে না।

এ ব্যবসায়ী জানান, প্রতিদিন ৩০ থেকে ৪০ কেজি আলু পাইকারি বাজার থেকে কেনেন তিনি। অন্যান্য সবজির সঙ্গে সারাদিন সেটি বিক্রি করেন। বুুধবার সকালে তিনি কারওয়ান বাজার থেকে প্রতিকেজি নতুন আলু কিনেছেন ৭২ টাকা কেজি দরে। বিক্রি করছেন ৮০ টাকায়।

শান্তিনগরসহ আশপাশে সেগুনবাগিচা, ফকিরাপুল, গোপীবাগসহ বিভিন্ন  বাজার ঘুরে আলুর একই দাম দেখা গেলো। অর্থাৎ ৭০ টাকার নিচে এখন কোনো আলু মিলছে না। ভালো (বাছায় করা) আলুর দাম ৮০ টাকা প্রতিকেজি।

সেগুনবাগিচা বাজারের বিক্রেতা অনিস বলেন, নতুন একবস্তা (৭০ কেজি) আলুর দাম এখন ৪ হাজার ৮০০ টাকা কেনা। এরপর পরিবহন ও খাজনাসহ দাম পড়ে ৭২ টাকা কেজি। এরমধ্যে প্রায় ১০ কেজি আলু থাকে একদম ছোট ও খারাপ মানের। যেগুলো আলাদা করে কম দামে বিক্রি করতে হয়। যে কারণে ৮০ টাকার নিচে আলু বিক্রি করলে মুনাফা হবে না।

এদিকে খালেক মিয়া নামের একজন ব্যবসায়ী বলেন, এ মাসের শুরুতে আলুর দাম কমার দিকে ছিল। নতুন আলুও প্রতিকেজি ৬০ টাকায় নেমেছিল। কিন্তু মাসের শুরুতে বৃষ্টি হয়। এরপর বাজারে আলু কম আসতে শুরু করে।

তিনি আরও বলেন, মাঝে ভারত থেকে সামান্য কিছু আলু এসেছে। সেটাও এখন বন্ধ। সব মিলে আলুর বাজারে এ খারাপ অবস্থা।

এদিকে গত বছরের একই সময়ের চেয়ে আলু তিনগুণ দামে বিক্রি হচ্ছে। ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) বাজারদরের তালিকানুযায়ী, ঢাকায় মানভেদে প্রতি কেজি নতুন ও পুরোনো আলু বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকায়। সরকারি সংস্থাটির হিসাব পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত এক মাসে আলুর দাম বেড়েছে ৩৭ শতাংশের মতো। গত বছরের এ সময়ে ঢাকার বাজারে নতুন ও পুরোনো আলুর কেজি ছিল ২০ থেকে ২৫ টাকা। এর মানে, দেশে এক বছরের ব্যবধানে পণ্যটির দাম বেড়েছে ১৮৯ শতাংশ।

এ বছর সেপ্টেম্বর থেকে হঠাৎ আলুর দাম বাড়তে শুরু করে। বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকার খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজিতে আলুর দাম ৩৫-৩৬ টাকা (হিমাগার পর্যায়ে ২৬-২৭) বেঁধে দেয়। সেই সঙ্গে আমদানির অনুমতি এবং দাম স্থিতিশীল রাখতে বাজারে অভিযান শুরু করে প্রশাসন। জেলায় জেলায় হিমাগার পর্যায়েও তদারক করা হয়। তবে এখন পর্যন্ত বাজারে বড় কোনো প্রভাব দেখা যায়নি। প্রতি কেজির দাম ৫০ টাকার নিচে নামেনি। #


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর