সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৪:৪৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ধানমন্ডির বসিলায় ওয়েস্ট হাউজিংয়ে বিনা নোটিশে ১৭ টি পরিবারকে উচ্ছেদ জেল থেকে বেরিয়ে ফের শিশু পর্নোগ্রাফি চক্রে, শিশুসাহিত্যিক টিপু সঙ্গীসহ গ্রেফতার ১ম বিয়ে ১০০, ২য় ৫ হাজার, ৩য় ২০ হাজার, ৪র্থ বিয়ে করলে দিতে হবে ৫০ হাজার টাকা কর সিন্ডিকেট ও মজুতদারির বিরুদ্ধে র‌্যাবের অভিযান হজ নিবন্ধনের সময় বাড়ল ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তুরাগতীরে বৃহত্তম জুমার জামাত অনুষ্ঠিত ঢাকা জেলা প্রেস ক্লাব নির্বাচন শামীম সভাপতি ও ফারুক সাধারণ সম্পাদক পুলিশ হেফাজতে বডি বিল্ডার ফারুকের মৃত্যুর অভিযোগ আদালতে মামলা দায়ের, তদন্তে ডিবি টিআইয়ের দুর্নীতির ধারণাসূচকের প্রতিবেদন অস্পষ্ট: দুদক আড়াই বছরেও কূলকিনারা হয়নি ডা. সাবিরা হত্যাকান্ডের রহস্যের
নোটিশ :
Wellcome to our website...

সামাজিক মাধ্যমে নারীর অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে ব্ল্যাকমেইল

রিপোর্টার / ৮২ বার
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

 

নিজস্ব প্রতিবেদক
চাকরির প্রলোভনে প্রতারণার শিকার হয়েছেন শতাধিক নারী। সামাজিক মাধ্যমে উইকিপিডিয়া ও গুগলসহ দেশি-বিদেশি কোম্পানীতে বিভিন্ন পদে উচ্চ বেতনে চাকরির বিজ্ঞাপন দিয়ে ফাঁদ পাতে আল ফাহাদ নামে এক তরুণ। আর এই ফাঁদে পা দিয়ে ব্ল্যাবমেইলের শিকার হয়েছেন ওই নারীরা। চাকরির জন্য স্বাস্থ্য পরীক্ষার নামে অনলাইনে ‘ভার্চুয়াল মেডিকেল স্ক্যানিং’ (স্বাস্থ্য পরীক্ষা) গোপনে তরুণীদের আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করতেন ফাহাদ। পরে সেই ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছেড়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে হাতিয়ে নিয়েছেন মোটা অঙ্কের টাকা। নারীদের বিশ^াস অর্জনে এবং তাদের আকৃষ্ট করতে ফাহাদ বিশেষ অ্যাপসের মাধ্যমে নারীকণ্ঠ কথা বলতেন চাকরি প্রত্যাশি মেয়েদের সাথে। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। ভুক্তভোগীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে গত বুধবার রাতে রাজধানীর গুলশানের নর্দ্দায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত ফাহাদকে (১৯) গ্রেফতার করে র‌্যাব। এ সময় তার কাছ থেকে একটি দামি ক্যামেরা, দুটি ক্যামেরার লেন্স, একটি মোবাইল ফোন, ছয়টি সিম কার্ড, একটি এক্সটারনাল মেমোরি কার্ড ও ৪০৩ পিস ইয়াবা জব্দ করা হয়।
র‌্যাব জানায়, গত দেড় বছরে এভাবে শতাধিক নারীকে জিম্মি করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে অভিযুক্ত ফাহাদ। তার টার্গেট ছিল পার্ট টাইম চাকরি প্রত্যাশী এসএসসি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা। চাকরি প্রত্যাশীদের কাছ থেকে নেয়া হতো ৩৫০-৫০০ টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি।
জানা গেছে, ফাহাদ অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করে। পরে লেখাপড়া ছেড়ে দিয়ে বাবার সঙ্গে ফলের দোকান চালাতেন। ফল বিক্রির আড়ালে ফেসবুকে ‘অনলাইন জব বিডি’ ও ‘পার্ট টাইম জবস ইন ঢাকা’ এবং ‘পার্ট টাইম জবস ইন বাংলাদেশ’ নামে গ্রুপে সদস্য হিসেবে যোগ দেয়। গ্রুপে দেশি-বিদেশি কোম্পানিতে বিভিন্ন পদে চাকরির নামে বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রতারণা শুরু করেন তিনি। প্রতারণা ও ব্ল্যাকমেইলিংয়ের কাজে ফেসবুকে বেশ কিছু নারীদের ভুয়া আইডি ব্যবহার করতেন ফাহাদ।
র‌্যাব জানিয়েছে, শুধু ফাহাদ নয়, করোনা মহামারির শুরু থেকেই অপরাধীরা ভার্চুয়াল জগতের অপব্যবহার করে বিভিন্নভাবে প্রতারণা করে আসছে। নারীদের হেনস্তা, প্রতারণা ও ব্ল্যাকমেইলিংয়ের মাধ্যমে ফাঁদে ফেলছে। ভুক্তভোগী অনেকে ‘রিপোর্ট টু র‌্যাব’ ও র‌্যাবের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অভিযোগ করেছেন। অনেকে র‌্যাবের কাছে সরাসরি অভিযোগও দেন। তথ্য পর্যালোচনা করে অভিযুক্তদের ধরতে র‌্যাবের গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়।
বৃহস্পতিবার রাজধানীর কাওরান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, অনলাইনে প্রতারণার শিকার কয়েক নারী সম্প্রতি র‌্যাবের কাছে অভিযোগ করেন। এর ভিত্তিতে র‌্যাব তদন্ত শুরু করে। পরে অভিযুক্ত ফাহাদকে গ্রেফতার করা হয়।
তিনি বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ফাহাদ র‌্যাবকে জানিয়েছে, অসংখ্য নারীর সঙ্গে প্রতারণার মাধ্যমে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। প্রথমে ফেসবুকে বিভিন্ন গ্রুপের মাধ্যমে অল্প বয়সী নারীদের দেশি-বিদেশি আন্তর্জাতিক সংস্থায় যেমন গুগল-উইকিপিডিয়াতে উচ্চ বেতনের চাকরির প্রলোভন দেখাত। চাকরির আশায় অনেক নারী প্রলোভনে পড়ে তার সঙ্গে যোগাযোগ করত। পরে তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে সাড়ে তিনশ থেকে ৫০০ টাকা ‘রেজিস্ট্রেশন ফি’ নেয়া হতো। এরপর মোবাইলে বিশেষ অ্যাপসের মাধ্যমে নারীকণ্ঠে চাকরিপ্রার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হতো। এছাড়া বিভিন্ন কৌশলে প্রার্থীদের করোনাকালে ‘ভার্চুয়াল মেডিকেল’ করা হবে বলে জানাত ফাহাদ। এছাড়া প্রার্থীদের বিভিন্ন সামাজিক চ্যাটিং অ্যাপসের মাধ্যমে ভিডিও কলে যুক্ত করত। এ সময় নিজের মোবাইলের ক্যামেরা বন্ধ রেখে ভিডিও কলে মেডিকেল পরীক্ষা নেওয়ার কথা বলে কৌশলে ভিকটিমদের গোপন ভিডিও ধারণ করত। পরে গোপনে ধারণ করা ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল করে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা দাবি করা হতো। এভাবে অভিযুক্ত ফাহাদ শতাধিক নারীকে নারীকে ফাঁদে ফেলেছেন।
র‌্যাব জানিয়েছে, চাকরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রার্থীদের অনেকগুলো ধাপ অতিক্রম করতে হতো। ফাহাদ নিজেই বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে কণ্ঠ পরিবর্তন করে নারীকন্ঠে চাকরিপ্রত্যাশীদের সঙ্গে কথা বলে ‘ভুয়া নিয়োগ’ প্রক্রিয়া শেষ করতেন। এক্ষেত্রে বিভিন্ন নারীর নাম ব্যবহার করে প্রথমে নিজেকে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা পরিচয় দিতেন। একই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে চাকরিতে যোগদান করেছেন বলে জানাতেন। পরে নিজেই ওই কোম্পানির প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে বিভিন্ন নামে পরিচয় দিতেন এবং ভিকটিমদের ইন্টারভিউ নিতেন। এরপর আবারও অ্যাপের মাধ্যমে ভয়েস পরিবর্তন করে নিজেই মেডিকেল অফিসার হিসেবে ভিকটিমদের ভার্চুয়াল মেডিকেল করানোর নামে ভিডিও করতেন। যেহেতু করোনার সময়ে হাসপাতালে গিয়ে মেডিকেল করা সহজ ছিল না, সেক্ষেত্রে ফাহাদ সুযোগ কাজে লাগিয়ে কৌশলে ভিডিও করে নারী প্রার্থীদের ফাঁদে ফেলেন। এভাবে শতাধিক নারীকে চাকরির প্রলোভনে গোপনে ভিডিও ধারণ করে প্রতারণা করেছে ফাহাদ। যারা তার ফাঁদে পা দিয়েছেন, তাদের কাছ থেকে জনপ্রতি দুই থেকে পাঁচ হাজার টাকা নেওয়া হতো। এভাবে দেড় বছর ধরে শতাধিক নারীকে গোপন ভিডিও দেখিয়ে প্রতিনিয়ত ব্ল্যাকমেইল করা হতো। #


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর