সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৫:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ধানমন্ডির বসিলায় ওয়েস্ট হাউজিংয়ে বিনা নোটিশে ১৭ টি পরিবারকে উচ্ছেদ জেল থেকে বেরিয়ে ফের শিশু পর্নোগ্রাফি চক্রে, শিশুসাহিত্যিক টিপু সঙ্গীসহ গ্রেফতার ১ম বিয়ে ১০০, ২য় ৫ হাজার, ৩য় ২০ হাজার, ৪র্থ বিয়ে করলে দিতে হবে ৫০ হাজার টাকা কর সিন্ডিকেট ও মজুতদারির বিরুদ্ধে র‌্যাবের অভিযান হজ নিবন্ধনের সময় বাড়ল ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তুরাগতীরে বৃহত্তম জুমার জামাত অনুষ্ঠিত ঢাকা জেলা প্রেস ক্লাব নির্বাচন শামীম সভাপতি ও ফারুক সাধারণ সম্পাদক পুলিশ হেফাজতে বডি বিল্ডার ফারুকের মৃত্যুর অভিযোগ আদালতে মামলা দায়ের, তদন্তে ডিবি টিআইয়ের দুর্নীতির ধারণাসূচকের প্রতিবেদন অস্পষ্ট: দুদক আড়াই বছরেও কূলকিনারা হয়নি ডা. সাবিরা হত্যাকান্ডের রহস্যের
নোটিশ :
Wellcome to our website...

লালবাগে গণধর্ষনের ঘটনায় আরো দুজন গ্রেফতার

রিপোর্টার / ৭৯ বার
আপডেট : শুক্রবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রেমের টানে পটুয়াখালী থেকে ঢাকায় এসেছিলো কলেজছাত্রী। লঞ্চ থেকে সদরঘাটে নামার তাকে বলা হয় লালবাগ কেল্লায় আসতে। সেখানে যাওয়ার পর প্রেমিক মনির হোসেন শুভ তাকে নিয়ে যায় নিজের বাসায়। সেখানে আটকে রেখে জোর করে ধর্ষণ করে। এরপর তাকে পাঠানো হয় বন্ধু আল আমিন ওরফে বিল্লালের মেসে। সেখানেও বিল্লাল তাকে জোর করে ধর্ষন করে। এরপর তআসে তাদের অপর বন্ধু সবুজ। ধর্ষনের জন্য জোরাজুরি করলেও কলেজছাত্রীর আকুতির কাছে পিছু হটতে বাধ্য হয়। এভাবে চারদিন চলার পর কলেজছাত্রীকে পটুয়াখালী ফেরত পাঠানোর কথা বলে টিএসসিতে ফেলে পালিয়ে যায় ধর্ষকরা। গত বৃহস্পতিবার প্রেমিক মনির হোসেন শুভকে আটক করে র‌্যাব। এরপরই অপর দুই আসামী বিল্লাল ও সবুজকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর ডিএমপির রমনা বিভাগের উপ পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান রমনা বিভাগের এডিসি শাহেন শাহ। তিনি বলেন, ঘটনার কয়েক মাস আগে মোবাইল অ্যাপস ইমোর মিস কলের মাধ্যম ওই কলেজছাত্রীর সঙ্গে পরিচয় হয় মো. মনির হোসেন শুভ (২২)। এই পরিচয় এক সময় রূপ নেয় প্রেমের। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ১২ ফেব্রুয়ারী পটুয়াখালী থেকে ঢাকায় ওই ডেকে আনে শুভ। আগে কখনো সরাসরি দেখা না হলেও ভিডিও কলে একে অপরকে দেখেছে তারা। লঞ্চে এসে সদরঘাটে নামে। সদরঘাট থেকে শুভ মেয়েটিকে লালবাগ কেল্লা মোড়ে আসতে বলে।
তিনি বলেন, ঢাকায় আসার পর প্রথম দিনেই শুভ ওই কলেজছাত্রীকে বাসায় নিয়ে গিয়ে জোর করে ধর্ষন করে। এরপর শুভর বন্ধু আল আমিন ওরফে বিল্লাল নামের এক যুবকের সঙ্গে ভুক্তভোগীর পরিচয় করিয়ে দেয় শুভ। রাতে শুভর বাসায় থাকা যাবেনা বলে তরুণীকে আল আমিনের বাসায় থাকতে বলে। পরে আল আমিন তাকে নিয়ে যায় তার বাসাবোর বাসায়। আল আমিনের বাসায় গিয়ে তরুণী দেখে এটি একটি মেস বাসা। সেই বাসায় আল আমিন ছাড়া আর কেউ নেই। এরপর মেয়েটির মনে সন্দেহ হলে শুভকে ফোন করে কান্নাকাটি করে বলে, এই মেস বাসায় কেন পাঠালে আমাকে। এরপর আল আমিন তরুণীকে ধর্ষণ করে। ওই মেসে সবুজ নামে তাদের অপর এক বন্ধু আসে। সেও মেয়েটিকে ধর্ষণ চেষ্টা করে তবে তার বাধার কারণে পারেনি।
এডিসি শাহেন শাহ্ বলেন, প্রেমিক মনির হোসেন শুভ ১৩ ও ১৫ ফেব্রুয়ারি আল আমিনের মেসে গিয়ে তরুণীকে পটুয়াখালী ফিরে যাওয়ার জন্য চাপ দিতে। কিন্তু মেয়েটি তখন বলে, ‘কেন আমাকে বিয়ের কথা বলে ঢাকায় নিয়ে এলে’। এ সময় শুভ ও আল আমিন মেয়েটিকে মারধর করে। এরপর আল আমিনকে দিয়ে শুভ ভুক্তভোগীকে রিকশায় পাঠিয়ে দেয়। আল আমিন টিএসসিতে এসে তাকে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। এরপরই পথচারীরা অসুস্থ্য অবস্থায় মেয়েটির ঢাকা মেডিক্যালে নিয়ে যায়। শাহেন শাহ্ আরো বলেন, মেয়েটির সঙ্গে আমাদের কথা হয়েছে। সে আগের চেয়ে ভালো আছে। মেয়েটি কলেজছাত্রী কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, না, মেয়েটি আমাদেরকে জানিয়েছে সে পড়ালেখা করে না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর