সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৫:৪১ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
ধানমন্ডির বসিলায় ওয়েস্ট হাউজিংয়ে বিনা নোটিশে ১৭ টি পরিবারকে উচ্ছেদ জেল থেকে বেরিয়ে ফের শিশু পর্নোগ্রাফি চক্রে, শিশুসাহিত্যিক টিপু সঙ্গীসহ গ্রেফতার ১ম বিয়ে ১০০, ২য় ৫ হাজার, ৩য় ২০ হাজার, ৪র্থ বিয়ে করলে দিতে হবে ৫০ হাজার টাকা কর সিন্ডিকেট ও মজুতদারির বিরুদ্ধে র‌্যাবের অভিযান হজ নিবন্ধনের সময় বাড়ল ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত তুরাগতীরে বৃহত্তম জুমার জামাত অনুষ্ঠিত ঢাকা জেলা প্রেস ক্লাব নির্বাচন শামীম সভাপতি ও ফারুক সাধারণ সম্পাদক পুলিশ হেফাজতে বডি বিল্ডার ফারুকের মৃত্যুর অভিযোগ আদালতে মামলা দায়ের, তদন্তে ডিবি টিআইয়ের দুর্নীতির ধারণাসূচকের প্রতিবেদন অস্পষ্ট: দুদক আড়াই বছরেও কূলকিনারা হয়নি ডা. সাবিরা হত্যাকান্ডের রহস্যের
নোটিশ :
Wellcome to our website...

লাশ পাওয়া গেছে, তোরা কবর খোঁড়

রিপোর্টার / ৬৩ বার
আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৯ মার্চ, ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক
রাজধানীর সিদ্দিকবাজারে ভয়াবহ বিস্ফোরণে ধসে পড়া সাততলা ভবনের ধবংসস্তুপ থেকে তৃতীয় দিনে আরো একজনের লাশ উদ্ধার হয়েছে। নিহতের নাম মেহেদী হাসান স্বপন (৪০)।
মঙ্গলবার কুইন স্যানিটারি মার্কেট হিসেবে পরিচিত ভবনে বিস্ফোরণের পর থেকে মেহেদী নিখোঁজ ছিলেন।  বৃহস্পতিবার দুপুর সোয়া ১২টার দিকে ভবনটির বেজমেন্ট থেকে তার লাশ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিস।
মঙ্গলবার বিকেল পৌনে পাঁচটার দিকে কুইন স্যানিটারি মার্কেটে ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাত পর্যন্ত ২৩ জন মারা গেছেন।
এদিকে তৃতীয় দিনে উদ্ধার অভিযান শেষে ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে ধসে পড়া ওই ভবনে আর কেউ আটকে নেই। স্বজনদের কেউ নিখোঁজেরও দাবি করেনি।
লাশ পাওয়া গেছে, তোরা কবর খোঁড় :
দুপুরে যখন ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা ভবনের ধবংসস্তুপ থেকে নিখোঁজ মেহেদী হাসান স্বপনের লাশ নিয়ে অ্যাম্বুলেন্সের সামনে আসেন, তখন নিখোঁজ ভাইয়ের অপেক্ষায় ছিলেন তানভীর হাসান। ব্যাগভর্তি লাশ দেখেই হাউমাউ করে কেঁদে ওঠেন তানভীর। প্যান্টের পকেট থেকে মোবাইলফোন কানে নিয়ে কেঁদে কেঁদে বলছিলেন, ‘লাশ পাওয়া গেছে, তোরা কবর খোঁড়’।
মেহেদীর বড় ভাই তানভীরসহ ঘটনাস্থলে উপস্থিত স্বজনেরা লাশটি শনাক্ত করেন। মেহেদীর লাশ উদ্ধার হওয়ার খবর মোবাইলে বাড়িতে জানান তানভীর। তাদের গ্রামের বাড়ি নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার পশ্চিম এনায়েতপুর গ্রামে। দুই ভাই ও চার বোনের মধ্যে সবার ছোট ছিলেন মেহেদী। তার স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।
বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত সাততলা ভবনটির বেজমেন্টে থাকা বাংলাদেশ স্যানিটারি নামের দোকানের ব্যবস্থাপক ছিলেন মেহেদী। বেজমেন্টের দক্ষিণ পাশে সিঁড়ির নিচে মেহেদীর লাশ পায় ফায়ার সার্ভিস। মেহেদীর লাশ উদ্ধারের পর বড় ভাই তানভীর বিলাপ করতে করতে বলছিলেন, মেহেদী ছিল সবার ছোট। ও-ই সবার আগে চলে গেল।
ভবনে আর কেউ আটকে নেই:
সিদ্দিকবাজারে বিস্ফোরণে নিখোঁজ মেহেদী হাসান স্বপনের লাশ উদ্ধারের পর ভবনে আর কোনো ভিকটিম নেই বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।
ফায়ার সার্ভিসের ঢাকা সহকারী পরিচালক আক্তারুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, বুধবার দুটি লাশ পাওয়া গিয়েছিল। সকাল থেকে উদ্ধার অভিযান শুরু হয়। নিখোঁজ মেহেদী হাসান স্বপনের লাশ পাওয়া গেছে। তার স্বজনেরা এটি মেহেদীর লাশ বলে নিশ্চিত করেছেন। মেহেদীর পরিবার বলছে, তার ওজন ছিল ১২০ কেজির মতো। তার লাশ বহনে দুটি ব্যাগ ব্যবহার করতে হয়েছে।
আক্তারুজ্জামান বলেন, ভবনে আর কোনো ভিকটিম নেই বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। উদ্ধার অভিযান চলবে কি না সেটি ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালকের সঙ্গে কথা বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
ভবনের বেজমেন্টে বাংলাদেশ স্যানিটারি নামে একটি দোকান ছিল। মেহেদী ছিলেন ওই দোকানের ব্যবস্থাপক। বেজমেন্টের দক্ষিণ পাশে সিঁড়ির নিচে মেহেদীর লাশ পাওয়া যায় ।
ঢাকা মেডিকেল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছে ৫ জন:
বিস্ফোরণের ঘটনায় আহতদের মধ্যে পাঁচজনকে ছাড়পত্র দিয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তবে এখনও ১৫ জন ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন। এদের মধ্যে আইসিইউতে থাকা রাজন ছাড়া বাকি সবার অবস্থার উন্নতি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাজমুল হক। গতকাল বেলা ১১টার দিকে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, আমাদের এখানে মোট ১৫ জন রোগী ভর্তি রয়েছে। একজন আইসিইউতে। আর বাকিরা সবাই বিভিন্ন ওয়ার্ডে চিকিৎসা নিচ্ছেন। পাঁচ জনকে চিকিৎসকরা দেখে ছাড়পত্র দিয়েছেন। তবে তারা পরে আবার চিকিৎসা নিতে আসবেন।
তিনি বলেন, আইসিইউতে থাকা রাজনের গতকাল অস্ত্রোপচার হয়েছে। তবে তাকে শঙ্কামুক্ত বলা যাচ্ছে না। আমরা তদের চিকিৎসার জন্য একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করেছি। বোর্ডে বিভিন্ন বিভাগের প্রধানরা রয়েছেন। বিস্ফোরণের পর আমাদের এখানে ১৭২ জন রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন।
শেখ হাসিনা বার্নে ভর্তিদের শ্বাসনালি দগ্ধ:
বিস্ফোরণের ঘটনায় শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি নয়জনের সবার অবস্থায়ই আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। তাদের সবারই শ্বাসনালি দগ্ধ হয়েছে। ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন সাংবাদিকদের বলেন, আমাদের এখানে নয়জন ভর্তি রয়েছেন। তার মধ্যে তিনজনকে রাখা হয়েছে আইসিইউতে; যাদের দুজনকে লাইফ সাপোর্ট দিয়ে রাখা হয়েছে।
ডা. সামন্ত বলেন, ২০ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড মিলে সব রোগী দেখেছি এবং তাদের চিকিৎসার বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে। বোর্ডের সিদ্ধান্তে তাদের চিকিৎসায় কিছুটা পরিবর্তন আনা হবে। অস্ত্রোপচার কক্ষে নিয়ে তাদের শরীরে ড্রেসিং করা হয়েছে। আরও কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষাও করা হচ্ছে।
তিনি বলেন, সবারই শ্বাসনালি দগ্ধ হয়েছে। বাসায় না যাওয়া পর্যন্ত কেউ শঙ্কামুক্ত নন। ভর্তি থাকা ডেন্টালের ইন্টার্ন চিকিৎসক আল-আমিন কিছুটা ভালো রয়েছেন বলে জানান তিনি। গত রাতে হাফেজ মুসা হায়দার নামে দগ্ধ একজন বার্ন ইউনিটে মারা গেছেন বলেও জানান তিনি। #


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এক ক্লিকে বিভাগের খবর